স্বদেশ
মঙ্গলবার, ২০ অক্টোবর ২০২০ ৫ কার্ত্তিক ১৪২৭ বঙ্গাব্দ

রিফাত হত্যাকাণ্ডে ফাঁসলেন মিন্নিও

ওয়ান নিউজ ডেস্ক
প্রকাশিতঃ সেপ্টেম্বর ৩০, ২০২০ , ৫:৫১ অপরাহ্ন
রিফাত হত্যা

রিফাত শরীফের স্ত্রী আয়েশা সিদ্দিকা মিন্নি শুরু থেকেই আলোচনায় ছিলেন। হত্যাকাণ্ডের পর প্রথম দিকে তিনি সাক্ষী হিসেবে থাকলেও পরবর্তীতে তাকে আসামি করা হয়। এরপর থেকে আলোচনাটা আরও বেশি করে হয়েছে। মিন্নি কি আসলেই নির্দোষ নাকি হত্যাকাণ্ডে তার হাত আছে। এমন সব প্রশ্নের উত্তর ঘুরপাক খাচ্ছিল সাধারণের মনে। অবশেষে সেইসব প্রশ্নে উত্তর মিলেছে। আদালত মিন্নিকে মাস্টারমাইন্ডই বলেছে। সে অনুযায়ী রায় ঘোষণা করা হয়েছে। মিন্নিসহ ছয়জনের ফাঁসির আদেশ দিয়েছেন আদালত। একই মামলায় চারজনকে খালাস প্রদান করা হয়েছে। এছাড়া প্রত্যেককে ৫০ হাজার টাকা জরিমানা করেছেন আদালত।

বুধবার দুপুর পৌনে ২টার দিকে এ মামলার রায় ঘোষণা করেন বরগুনার জেলা ও দায়রা জজ আদালতের বিচারক মো. আছাদুজ্জামান।

আরও পড়ুন : রিফাত হত্যা : রায়ের অপেক্ষায় দেশবাসী, কড়া নিরাপত্তা জোরদার

মামলার রাষ্ট্রপক্ষের আইনজীবী বরগুনা জেলা ও দায়রা জজ আদালতের পাবলিক প্রসিকিউটর (পিপি) অ্যাডভোকেট ভূবন চন্দ্র হালদার এসব তথ্য নিশ্চিত করেন।

ফাঁসির দণ্ডপ্রাপ্তরা হলেন- মো. রাকিবুল হাসান ওরফে রিফাত ফরাজী (২৩), আল কাইয়ুম ওরফে রাব্বি আকন (২১), মোহাইমিনুল ইসলাম সিফাত (১৯), রেজোয়ান আলী খান হৃদয় ওরফে টিকটক হৃদয় (২২), মো. হাসান (১৯) ও আয়েশা সিদ্দিকা মিন্নি (১৯)।

এছাড়া এ মামলায় চার আসামিকে বেকসুর খালাস দেয়া হয়েছে। খালাসপ্রাপ্তরা হলেন- মো. মুসা (২২), রাফিউল ইসলাম রাব্বি (২০), মো. সাগর (১৯) ও কামরুল হাসান সায়মুন (২১)।

রায় ঘোষণার সময় দণ্ডপ্রাপ্ত রাকিবুল হাসান রিফাত ফরাজি, আল কাইউম ওরফে রাব্বি আকন, মোহাইমিনুল ইসলাম সিফাত, রেজওয়ান আলী খান হৃদয় ওরফে টিকটক হৃদয়, মো. হাসান, রাফিউল ইসলাম রাব্বি, মো. সাগর এবং কামরুল ইসলাম সাইমুন আদালতে উপস্থিত ছিলেন। ১০ আসামির মধ্যে মুসা পলাতক এবং মিন্নি জামিনে। মুসা ছাড়া বাকিরা রিফাত হত্যাকাণ্ডে জড়িত থাকার কথা স্বীকার করে আদালতে স্বীকারোক্তিমূলক জবানবন্দি দিয়েছিলেন।

মিন্নির আর বাড়ি ফেরা হলো না। গ্রেপ্তার হলেন তিনি। রায় ঘোষণার পর মিন্নিকে পুলিশ হেফাজতে নিয়েছে।

উল্লেখ্য, ২০১৯ সালের ২৬ জুন বরগুনা সরকারি কলেজের সামনে শত শত লোকের ভিড়ে রিফাত শরীফকে (২৫) কুপিয়ে হত্যা করা হয়। পরে রিফাতকে কুপিয়ে হত্যার একটি ভিডিও ফেসবুকে ভাইরাল হয়।

ওএন/জি

  • 42
  •  
  •  
  •  
  •  
  •  
  •  
  •  
  •  
  •  
    42
    Shares
  •  
    42
    Shares
  • 42
  •  
  •  
  •  
  •